Categories
আমার যত কথা

প্রথম সন্তানের বাবা হওয়া এবং ভবিষ্যতে নতুন বাবা-মা দের জন্য কিছু সহায়িকা

আপনারা হয়ত অনেকেই জানেন কিছুদিন আগে আমি আমার প্রথম সন্তানের বাবা হই, আলহামদুলিল্লাহ। আল্লাহ আমাকে ফুটফুটে কন্যা সন্তান দিয়েছেন।

মাতৃত্ব, নবজাতক থেকে বাবা মা — এই জার্নিটার সাথে আমরা সবাই মোটামুটি পরিচিত। কিভাবে মাইটোসিস মিয়োসিস কোষ বিভাজনের ফলে একটি ফুটফুটে সন্তানের জন্ম হয় এটা মোটামুটি আমরা সবাইই জানি। কিন্তু তারপরও এই বিষয়ে কিছু লিখে রাখতে মনে হল। এই খুব সাধারণ প্রক্রিয়াটাই এক সময় আপনার অলীক বলে মনে হবে, অন্তত আমার তাই মনে হয়েছে।

নতুন অতিথির আগমনী বার্তা

হঠাৎ করেই আমি এবং আমার ওয়াইফ আমরা সুসংবাদ পাই যে আমাদের ঘরে নতুন অতিথি আসছেন। আমরা আল্লাহ এর কাছে এর জন্য বিশেষ দোয়া করি, আলহামদুলিল্লাহ বলে আমরা যারপরনাই অনেক খুশি হই। কিন্তু আমরা এটাও জানতাম যে একজন নবজাতক ভূমিষ্ঠ হওয়ার আগ পর্যন্ত অনেক দায়িত্ব, কর্তব্য থাকে বাবা মায়ের যেন সুস্থ সবল হয়ে সে পৃথিবীতে আসতে পারে।

নবজাতকের সংবাদ শোনার পরেই আমাদের জীবনে অবধারিত ভাবেই কিছু পরিবর্তন এল। যেমন: চলা ফেরা, খাওয়া দাওয়া, যেকোন ভারী কাজ না করা – ইত্যাদি।

প্রথম কাজ – ভাল হাসপাতাল এবং ডাক্তার নির্বাচন করা

প্রেগনেন্সি কনফার্ম এবং পরবর্তী করণীয় কাজের জন্য সর্বোচ্চ প্রস্তুতির জন্য আপনার উচিৎ একজন ডাক্তারের অধীনে থাকা। এরপর আমরা দুইজন মিলে একজন ডাক্তার কে পছন্দ করি যিনি পুরো প্রেগনেন্সির সময় আমাদের গাইড করতে পারবেন এবং পরবর্তীতে তিনি ডেলিভারি করবেন। আপনি যদি প্রথমেই নিশ্চিত না হন কোন ডাক্তারের অধীনে পুরো সময় টা কাটাবেন তাহলে প্রথম দিকে যেকোন ভাল হাসপাতালের গাইনী ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করে প্রথম কিছু টেস্ট করেন। সাধারণত আলট্রাসনোগ্রাম সহ কিছু বেসিক টেস্ট ডাক্তাররা এইসময় সাজেস্ট করেন, এবং খাওয়া দাওয়া সহ প্রেগনেন্সি টাইমের একটা গাইডলাইন দিয়ে দেন।

৩ ধরনের প্রেগনেন্সি টাইমের যত্ন

গর্ভকালীন সময়কে তিনভাগে ভাগ করা যায়, যেগুলোকে বলা হয় ট্রাইমেস্টার। প্রতিটি ট্রাইমেস্টারেরই আলাদা আলাদা গুরুত্ব এবং চ্যালেঞ্জ থাকে।

ফার্স্ট ট্রাইমেস্টার

যেকোন ট্রাইমেস্টার এর চাইতে এই প্রথম ৩ মাস খুবই ভাইটাল এবং গুরুত্বপূর্ণ। তাই এসময় মায়ের সবচেয়ে বেশি কেয়ার দরকার হয়। এ সময় বাবুর ব্রেন সহ সকল ভাইটাল অর্গান ডেভেলপ হয় তাই এসময় সকল ভারী কাজ এবং সকল প্রকার বড়/ছোট যাত্রা/ঘুরা ফেরা এভয়েড করা উচিৎ। এছাড়া এসময় মায়েদের শরীরে কিছু সাপ্লিমেন্ট (ক্যালসিয়াম, ফলিক এসিড, বিভিন্ন প্রকার ভিটামিন ও মিনারেল) দরকার হয়।

যে ডাক্তারের অধীনে থাকবেন তিনি অথবা Dietician আপনাকে প্রপার একটি ডায়েট দিবেন যাতে খাবারের মাধ্যমে শরীরের জন্য প্রয়োজনীয় সবরকম পুষ্টি যেন মা পায়।

এখানে সবার সুবিধার্থে কাজী ফয়েজা আক্তার ম্যাডামের “গর্ভাবস্থার প্রথম ৩ মাসে করণীয়” ভিডিও টি সংযোজন করলাম কারণ একজন বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের পরামর্শ শেয়ার করাটা বেশি যুক্তিযুক্ত।

সেকেন্ড ট্রাইমেস্টার

অন্য দুই ট্রাইমেস্টারের চাইতে একটু সহজতর, তবে এসময়ও বাবু ও মায়ের কিছু স্পেসিফিক যত্ন নেওয়ার দরকার হয়। এমতবস্থায় আপনার ডাক্তারের পরামর্শগুলো নিন, রেগুলার কিছু টেস্ট করুন এবং কোন প্রেসক্রাইব মেডিসিন থাকলে গ্রহণ করুন।

থার্ড ট্রাইমেস্টার

গর্ভাবস্থার শেষ ৩ মাসকে বলা হয় থার্ড ট্রাইমেস্টার বা তৃতীয় ত্রৈমাসিক কাল। গর্ভাবস্থায় শেষ ৩ মাসে শিশুর ওজন দ্রুত বাড়তে থাকে। এজন্য এই সময়ে স্বাস্থ্যকর খাবার খেতে হবে। প্রয়োজনীয় মিনারেলস, ভিটামিন, আয়রন, ক্যালসিয়াম সহ, প্রোটিন, শর্করা, ফ্যাট – সবই গ্রহণ করতে হয় পরিমিত পরিমাণে। যে ডাক্তারের অধীনে থাকবেন তিনি অথবা Dietician আপনাকে প্রপার একটি ডায়েট দিবেন। শতভাগ না মানতে পারলেও ট্রাই করবেন যতটুকু পারা যায় বিভিন্ন ভ্যারিয়েশন এর খাবারগুলো ডেইলি রাখতে এতে বাবুর ওভারঅল ডেভেলপমেন্ট ভাল হবে।

নবজাতকের আগমণ

কবে ডেলিভারি হতে পারে আগেই ডাক্তারের সাথে আলোচনা করে রাখুন এবং ইমারজেন্সি কিছু হলে দ্রুত হাসপাতালে চলে যাবেন। এ সময় যদি আগে থেকে যদি একটা পরিবহন ব্যবস্থা করে রাখতে পারেন তাহলে ভাল।

এছাড়াও হসপিটাল ব্যাগ রেডি করে ফেলতে হবে ডেলিভারির ২/৩ সপ্তাহ আগেই। ডেলিভারি ব্যাগে এই জিনিসগুলো নিতে ভুলবেন না।

For baby:

1. Soft cotton dress (সুতি, নিমা)

2. New born diaper (0-4 kg, Incepta Neocare/other brand)

3. Baby wipes

4. Face towel (Napkin – small size)

5. Cap towel 1 piece or more

6. Baby bath (top-to-toe) for hair and body both

7. Baby feeder (small size 80/120 ml)

8. Breast Pump Machine (Automatic – buy whatever you can afford)

8. Bottle & nipple liquid cleanser and cleaning brush

9. Formula milk (new born, if required)

10. Urine Mat

For mother:

1. Comfortable maternity dress (2/3 set)

2. Maternal Pads

আগেই মা‘র রক্তের গ্রুপ জেনে রক্ত ম্যানেজ করে রাখবেন, কমপক্ষে ২ ব্যাগ যাতে ইমিডিয়েটলি রক্ত ম্যানেজ থাকে।

সব ঠিক থাকলে ইন শা আল্লাহ আপনার বেবি সুস্থ ভাবে পৃথিবীতে আসবে।

বাবা হওয়ার অনুভূতি

যখন আপনার স্ত্রীকে হসপিটাল বেড এ ট্রান্সফার করা হবে এরপরের সময়টুকু বেশ উৎকণ্ঠার। আমি হাসপাতালের বাইরে বসে একমনে দোআ কালাম পড়তে থাকি। অবশেষে সেই কাঙ্ক্ষিত সময় এল। নার্স ডাক দিয়ে আমার হাতে দিল ফুটফুটে কন্যা সন্তান All-ḥamdu l-illāhi rabbi l-ʿālamīn।

এই অনুভূতি ভাষায় ব্যক্ত করা সম্ভব নয়। নতুন এক অদ্ভুত অনুভূতি। আপনার বার বার মনে হবে কিভাবে আল্লাহ রাব্বিল আলামীন শূন্য থেকে জীবন দিয়ে একজন পরিপূর্ণ মানুষ হিসেবে একজনকে পাঠালেন। সৃষ্টির অনেক রহস্য আমরা আজও উন্মোচন করতে পারি নি, বাবা হওয়ার পর এমন মনে হয়েছে যে এই সৃষ্টির রহস্য আমরা আসলে পরিপূর্ণ ভাবে এখনো আবিষ্কার করতে পারি নি।

মানব সন্তান কিভাবে জন্ম হয় আমরা সবাই জানি কিন্তু তারপরও কিভাবে কোন শক্তির (অথবা কার নির্দেশে) বলে একটা নতুন প্রাণ তৈরি হল, এইটা কিন্তু ভাববার বিষয়। ইনিশিয়াল যে শক্তির কারণে প্রাণ বিকাশের শুরু — এটি যে সৃষ্টিকর্তা মহান রাব্বুল আলামীনের একান্ত এখতিয়ার, এটি যেন বাবা হওয়ার পর আরো ভালমত বুঝলাম।

পরে আমরা শুক্রবিন্দুকে পরিণত করি আলাকা-তে, অতঃপর ‘আলাকা-কে পরিণত করি গোশতপিণ্ডে, অতঃপর গোশতপিণ্ডকে পরিণত করি অস্থিতে; অতঃপর অস্থিকে ঢেকে দেই গোশত দিয়ে; তারপর তাকে গড়ে তুলি অন্য এক সৃষ্টিরূপে।(১) অতএব (দেখে নিন) সর্বোত্তম স্রষ্টা(২) আল্লাহ কত বরকতময়!(৩)

– Quran 23:12–14


শূন্য থেকে সৃষ্টি যখন একটি মানব শিশু – আল্লাহ এর অসীম ক্ষমতা বলে, বাবা এবং মা দুইজনের ২৩/২৩ জোড়া ক্রোমোজোমসেট মিলে, ৯ মাস ধরে ধীরে ধীরে বড় হয়ে পৃথিবীতে আসে – এই প্রক্রিয়াটা যেন পুরোটাই একটি আল্লাহর বিশেষ এক কুদরত এবং রহমত বলেই মনে হয়, আলহামদুলিল্লাহ।

নবজাতকের জন্য পিতামাতার কিছু দায়িত্ব

এছাড়াও জন্মের পর নবজাতকের জন্য পিতামাতার কিছু দায়িত্ব আছে যেটি এই ভিডিও তে পাবেন

যেমন:

১. সহবাসের পূর্বে দুয়া পাঠ করা
২. ভূমিষ্ঠ হবার পর আল্লাহর আশ্রয় চাওয়া এবং বদনজর থেকে হেফাজত কামনা করা
৩. সন্তান জন্মের পর ছেলে নাকি মেয়ে তা জানতে না চেয়ে আগে আল্লাহর শুকরিয়া আদায় স্বরূপ আলহামদুলিল্লাহ পাঠ করা
৪. বাচ্চার কানে আযান দেয়া
৫. তাহনীক করা
৬. বাবা তাঁর শিশুর জন্য দুয়া করা
৭. সুন্দর নাম রাখা
৮. সুন্নাত পদ্ধতিতে আকিকা করা
৯. চুল চাঁছা এবং তার সমপরিমাণ রূপা/রৌপ্যমূল্য আল্লাহর রাস্তায় দান করা
১০. জাফরানের রং শিশুর মাথায় মাখানো (জরুরি নয়)
১১. শিশুর খৎনা করা

আল্লাহ সবাইকে ভাল রাখুন, সুস্থ রাখুন। যাজাক আল্লাহ।


Discover more from আমার ঠিকানা...

Subscribe to get the latest posts to your email.

সাইফ দি বস ৭

By সাইফ দি বস ৭

পুরো নাম সাইফ হাসান। ছোটকাল থেকেই প্রযুক্তি, কম্পিউটার সম্পর্কিত বিষয়ে প্রচুর আগ্রহ এবং কৌতূহল। বর্তমানে কর্মরত আছেন উইডেভস এর লিড প্রোডাক্ট ম‍্যানেজার হিসেবে। এর আগে তিনি পপটিন (Poptin) এবং প্রিমিও (Premio) এর প্রোডাক্ট ম্যানেজার হিসেবে কাজ করেছেন। হিউম্যান সেন্টার্ড ডিজাইন, প্রোডাক্ট ম্যানেজমেন্ট, ডিজাইন থিংকিং, ওয়ার্ডপ্রেস, SaaS, আইওএস, এন্ড্রয়েড, উইন্ডোজসহ টেকনোলজির সাথে যুক্ত থেকে কাজের মধ‍্যে ব্যস্ত থাকতে পছন্দ করেন।

Add your first comment to this post

Discover more from আমার ঠিকানা...

Subscribe now to keep reading and get access to the full archive.

Continue reading